টেকনাফ

রোহিঙ্গা ক্যাম্প: দেখা থেকে লেখা

46views

নিউজ টেকনাফ @@

মিয়ানমার থেকে প্রাণ ভয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের দু’বছর আগে আশ্রয় দিয়ে এক অনন্য উদাহরণ সৃষ্টি করে বাংলাদেশ৷ আন্তর্জাতিক সমাজের কাছ দেশটির এই মানবিকতা ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে৷ তবে, দু’বছরের মধ্যে পরিস্থিতি বদলে গেছে অনেকটাই৷ মিয়ানমারে নিপীড়নের শিকার রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসার ঘটনা নতুন নয়৷ সেই সত্তরের দশকের শেষের দিক থেকে নানা সময় রোহিঙ্গারা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছেন৷ এদের একটি অংশ ফিরেও গেছেন৷ তবে ২০১৭ সালে একসঙ্গে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক, সাতলাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেন৷মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে বাংলাদেশের টেকনাফ, উখিয়ার দূরত্ব বেশি নয়৷ মাঝখানে বড় বাধা বলতে নাফ নদী৷ তাই সীমান্ত পেরিয়ে সহজেই ঢুকে যাওয়া যায় বাংলাদেশে৷ গত চার দশকে তাই ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা প্রাণভয়ে পালিয়ে এসেছেন বাংলাদেশে৷রোহিঙ্গাদের প্রাণভয়ে পালিয়ে আসার কারণ আমরা যতটা জানি তা হচ্ছে, মিয়ানমার তাদের সেদেশের নাগরিক মনে করে না৷ দেশটির চোখে তারা হচ্ছে বাঙালি৷ আর রাখাইনের অন্য ধর্মের বাসিন্দাদের সঙ্গেও রয়েছে রোহিঙ্গাদের দীর্ঘ বিরোধ৷ সেই বিরোধে রাষ্ট্র যখন অন্যদের পক্ষ নেয় তখন অবস্থাটা হয়ে পড়ে আরো শোচনীয়৷

বলছি না, রোহিঙ্গারা একেবারে ধোয়া তুলসি পাতা৷ তাদের মধ্যে এমনকি বিচ্ছিন্নতাবাদ বা সন্ত্রাসমূলক অপরাধে জড়ানোরও নজির আছে৷ রাখাইনে তাদের বিরুদ্ধে সেইসব অভিযোগ আর অপরাধ পুঁজি করে দেশটির সেনাবাহিনী ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে৷ সেই অভিযানে অসংখ্য রোহিঙ্গা প্রাণ হারিয়েছেন, ধর্ষণের শিকার হয়েছেন অনেক রোহিঙ্গা নারী আর তাদের কিছু গ্রাম একেবারে ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে৷

এরকম এক পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গারা যখন বাংলাদেশের সীমান্তে ভিড় করে, তখন এক পর্যায়ে বাংলাদেশ তাদের জন্য সীমান্ত খুলে দেয়৷ ফলে কুতুপালং এবং নয়াপাড়ায় আগে থেকে অবস্থানরত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কাছাকাছি নতুন পলাতকেরা আশ্রয় নিতে শুরু করে৷ মনে আছে, সেসময় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার পক্ষে মিছিলও হয়েছিল বাংলাদেশে৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও অনেক মানুষ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন৷

এটা সত্য যে নতুন রোহিঙ্গাদের টেকনাফ এবং উখিয়ায় আশ্রয় দিতে গিয়ে সেখানকার বনভূমি উজাড় করা হয়েছে, যেখানে আগে অসংখ্য হাতির বিচরণ ছিল৷ মনে আছে পরিবেশের এই ক্ষতি নিয়ে বাংলাদেশের তৎকালীন বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে প্রশ্ন করেছিলাম৷ তখন তিনি বলেছিলেন, ‘‘পরিবেশের ক্ষতিতো হবে৷ কিন্তু মানুষের উপরেতো কেউ নেই, মানবতার উপরেতো কেউ নেই৷”

 

কক্সবাজারের টেকনাফ এবং উখিয়াতে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের নানাবিধ সহায়তা দিতে অনেক দেশি-বিদেশি উন্নয়ন সংস্থা দ্রুত সেখানে গেছে৷ জাতিসংঘের বিভিন্ন উন্নয়নসংস্থার পাশাপাশি বাংলাদেশের ব্রাক সেখানে নানা প্রকল্প পরিচালনা করছে৷ আর সেসব প্রকল্পের জন্য অর্থ সহায়তা করেছে, করছে বিভিন্ন গোষ্ঠী এবং দেশ৷

তবে, দেশি-বিদেশি সহায়তা যাই থাক না কেন, ঘনবসতিপূর্ণ দেশ বাংলাদেশ ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়ে যে উদারতার পরিচয় দিয়েছে, সেটা বাংলাদেশিদের জন্য, বিশেষ করে প্রবাসীদের জন্য অনেক গর্বের ব্যাপার৷

সমস্যা হচ্ছে, আন্তর্জাতিক স্তরে বাংলাদেশের এই উদারতার ভূয়সী প্রশংসা হলেও যে দেশের কারণে এই সংকটের সৃষ্টি, সেই মিয়ানমারের উপর গত দুই বছরে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে তেমন একটা চাপ সৃষ্টি হয়নি৷ বরং দেশটি এই সময়ের মধ্যে রোহিঙ্গাদের কিছু গ্রাম নিশ্চিহ্ন করে সেখানে সেনাবাহিনীর ক্যাম্প, সরকারি ভবন তৈরিসহ অন্যদের আশ্রয় দিয়েছে৷ দেশটি কার্যত রোহিঙ্গাদের সত্যিকার অর্থে ফেরত নিতে চায় এমন কোন কিছু করেনি৷

ফলে, বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে, বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের মধ্যে একধরনের ভীতি সৃষ্টি হয়েছে যে রোহিঙ্গারা সম্ভবত স্থায়ীভাবেই বাংলাদেশে থেকে যাবে৷ গতমাসে কিছুদিন দুই জার্মান সহকর্মীসহ শরণার্থী শিবিরগুলো ঘুরে, স্থানীয় প্রশাসন, সরকারের নানা পর্যায়ের সঙ্গে কথা বলে আমার কাছে এটাই মনে হয়েছে যে রোহিঙ্গাদের নিয়ে একধরনের ভীতি দানা বাঁধছে৷ আর এই ভীতিতে নানাভাবে রসদ জোগাচ্ছে কিছু গণমাধ্যম এবং ফেসবুক৷

দিনে এবং রাতে শরণার্থী শিবিরগুলো ঘুরে আমি দেখেছি বাংলাদেশের সেনাবাহিনীসহ আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনী এবং গোয়েন্দা সংস্থা অত্যন্ত কঠোরভাবে সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখছে৷ গতমাসে সেখানে স্থানীয় এক যুবলীগ নেতা খুনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ইতোমধ্যে অন্তত পাঁচ রোহিঙ্গা ‘ক্রসফায়ারে’ নিহত হয়েছেন৷ রোহিঙ্গা নারীদের পতিতাবৃত্তিতে জড়ানো ঠেকাতে টেকনাফ, উখিয়া, কক্সবাজারে বিভিন্ন হোটেলে নিয়মিতই পুলিশ রেইড চলছে৷ অবস্থা এমন যে যৌনকর্মীদের অনেকক্ষেত্রে হোটেলে না রেখে বিচে কিংবা অটোরিকশায় রাখা হচ্ছে এবং দালালরা নানাভাবে খদ্দেরদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর তাদের সঙ্গে যোগাযোগ ঘটিয়ে দিচ্ছে৷

নিরাপত্তা বাহিনীর এই সক্রিয়তার মাঝেও ছোটখাট নানা ধরনের অপরাধ ঘটছে, ঘটছে মানবপাচারের ঘটনা৷ কিন্তু সেসব অপরাধের কোনটাই রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে কিংবা কক্সবাজার ‘দখল করে নেয়ার’ পায়তারা নয়৷ রোহিঙ্গাদের সেই সাধ্য, স্বপ্ন কোনটাই নেই৷ অথচ ফেসবুকে মাঝেমাঝেই দেখি অনেকে সেরকম ইঙ্গিত দিচ্ছেন৷

গত ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গাদের এক বড় সমাবেশ নিয়ে অনেক জল ঘোলা হয়েছে৷ কেউ কেউ এটাকে বাংলাদেশের জন্য হুমকি মনে করছেন৷ অথচ সেই সমাবেশ থেকে কার্যত বাংলাদেশের মানুষের জন্য দোয়া চাওয়া হয়েছে এবং রোহিঙ্গারা মিয়ানমার সরকার কোনো কোনো দাবি মানলে তারা ফিরে যাবে সেটা শক্তভাবে জানিয়েছে৷ মোটের উপর সমাবেশটা রোহিঙ্গারা করেছিল স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সায় পেয়েই৷ সায় পাওয়ার বিষয়টি আমি নিশ্চিতভাবে বলছি এজন্য যে আমরা সেই সমাবেশের আগে রোহিঙ্গা শিবিরে গিয়েছি৷ সেখানে কর্মরত মানবাধিকার কর্মী, এনজিও এবং স্থানীয় রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন শুধুমাত্র প্রশাসনের অনুমতি পেলেই সমাবেশটি হতে পারে৷

অথচ সরকারের তরফ থেকে সমাবেশের পর বেশ কিছু উদ্যোগ দেখা গেছে৷ শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি)  এবং একটি ক্যাম্পের ইনচার্জকে রাতারাতি অন্যত্র বদলি করা হয়েছে৷ রোহিঙ্গাদের মধ্য থেকে যাদের চিহ্নিত করা গেছে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে৷ আমার প্রশ্নশরণার্থী শিবিরগুলো ঘুরে মোটা দাগে আমার কাছে মনে হয়েছে অধিকাংশ রোহিঙ্গাই মিয়ানমারে তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে চান৷ তারা শুধু চান, মিয়ানমার সরকার তাদেরকে নিজের দেশের মানুষ হিসেবে মেনে নিক এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করুক৷ আর এই নিশ্চয়তা মিয়ানমারের কাছ থেকে আদায় করে নেয়ার দায়িত্ব আন্তর্জাতিক সমাজের৷ তাই এক্ষেত্রে কূটনৈতিক তৎপরতা বাড়ানো উচিত৷

মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশ একটি ঘনবসতিপূর্ণ দেশ৷ এই দেশের অনেক মানুষ এখনো উপযুক্ত চাকরি পাচ্ছেন না, তিন বেলা খেতে পারছেন না৷ এরকম একটি দেশের মানুষ যখন দায়িত্বশীল রাজনীতিবিদদের মুখে শোনে রোহিঙ্গারা অনেক ‘আরাম-আয়েশে’ আছেন, তখন স্বাভাবিকভাবে তাদের অনেকের পক্ষে সেটা মেনে নেয়া কঠিন৷ এটা ঠিক, রোহিঙ্গারা রাখাইনে যে নির্যাতন-নিপীড়নের শিকার হয়েছেন, সেই তুলনায় কক্সবাজারের ঘনবসতিপূর্ণ ক্যাম্পের অস্থায়ী তাঁবুতে ভালো আছেন৷ তবে, সেই ভালো থাকা আরাম-আয়েশের পর্যায়ে পড়ে না৷

আমার মনে হয়, বর্তমান পরিস্থিতি রোহিঙ্গাদের সম্পর্কে বাড়তি ভীতি তৈরির চেয়ে তাদের ফিরিয়ে নিতে কূটনৈতিক তৎপরতায় জোর দেয়া উচিত৷ রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের কাছে বোঝা হতেই পারে, কিন্তু সেই বোঝা ঠান্ডা মাথায় সরাতে হবে৷ সাধারণ মানুষের মধ্যে অহেতুক ভীতি, উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা তৈরি করে কোন সমাধান আসবে না৷