আন্তর্জাতিকরোহিঙ্গা সমস্যা

রোহিঙ্গা নির্যাতন মিয়ানমারের সামরিক প্রধানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

52views
নিউজ টেকনাফ ডেক্স::::

মিয়ানমারের সামরিক প্রধানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ জুলাই) মিয়ানমারের কমান্ডার ইন চিফ মিন আং হলিং এবং আরো কিছু সামরিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা মুসলমানদের নির্বিচারে হত্যার অভিযোগ থাকায় এ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের গণ হারে হত্যার প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র যে শক্ত অবস্থান নিয়েছে, এ নিষেধাজ্ঞা তারই প্রমাণ।

মিয়ানমার কমান্ডার ইন চিফ সিনিয়র জেনারেল মিন আং হলিং ছাড়াও তার ডেপুটি সো উইন, সিনিয়র কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল থান ও এবং ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অং অং এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছেন। তাদের পরিবারও যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে পারবে না বলে জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পে এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র বারবার বলার পরও মিয়ানমার সরকার মানবাধিকার লঙ্ঘন ও অপব্যবহারের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের জবাবদিহির বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এতে আমরা উদ্বিগ্ন।’

পম্পে বলেন, ‘সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে, মিন অং হলিং ২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের জাতিগতভাবে নিশ্চিহ্ন করার জন্য ইন দিদিন গ্রামে নির্বিচারে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত সৈনিকদের মুক্তির আদেশ দেন। এটিই ছিল সামরিক বাহিনীর সিনিয়র নেতৃত্বের জবাবদিহিতা এবং দায়বদ্ধতার অভাবের একটি গুরুতর উদাহরণ।’

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, ‘মিয়ানমারের কম্যান্ডার ইন চিফ রোহিঙ্গা হত্যায় অভিযুক্তকে মাত্র এক মাস জেল খাটিয়ে মুক্ত করে দিয়েছেন। অন্যদিকে এ হত্যার বিষয়ে বিশ্বকে যেসব সাংবাদিক জানিয়েছেন, তাদের ৫০০ দিনের বেশি জেল খাটানো হয়েছে।’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পে আয়োজিত ‘ধর্মীয় স্বাধীনতা’ বিষয়ে মন্ত্রী পর্যায়ের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রথম দিন নির্যাতিত রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এ নিষেধাজ্ঞা জারি হলো।

পম্পে বলেন, ‘এ ঘোষণার মাধ্যমে মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর সবচেয়ে সিনিয়র নেতৃত্বেকেও জনসম্মুখে জবাবদিহিতার আওতায় আনা হলো।’