খেলাধুলা

ইংল্যান্ডকে হতাশ করে রোমাঞ্চকর জয় শ্রীলঙ্কার

44views

জয়ের মঞ্চ প্রস্তুতই ছিল ইংল্যান্ডের। লক্ষ্য মাত্র ২৩৩। যে দলটি দাপটে এগিয়ে যাচ্ছে বিশ্বকাপে সেই দলটির জন্য এটা তো মামুলি পুঁজিই। কিন্তু জয় হাতছানি দিকে থাকা ইংলিশরা পথ হারাল। লাসিথ মালিঙ্গা আর ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার বোলিংয়ে পাল্টে যায় দৃশ্যপট। তবে বেন স্টোকসও প্রতিরোধের প্রাচীর তুলে দাঁড়িয়েছিলেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। ব্যাটিং বীরত্বের পরও অন্যপ্রান্তে দাঁড়িয়ে হার দেখতে হয় তাকে!

শুক্রবার হেডিংলিতে অনুষ্ঠিত ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শ্রীলঙ্কা ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে করে ২৩২ রান। জবাব দিতে নেমে ৪৭ ওভারে অলআউট হয়ে ইংলিশ তুলে ২১২ রান। রোমাঞ্চকর এক জয় লঙ্কানদের!

২০ রানে ম্যাচ জিতে সেমি-ফাইনালের আশা বাঁচিয়ে রাখল শ্রীলঙ্কা।

লো-স্কোরিং ম্যাচটা এমন জমে উঠবে আঁচ করা যায়নি। মনে হচ্ছিল দাপটেই আরেকটি জয় তুলে নেবে ইংলিশরা। তবে উইকেট পতনের মিছিল শুরু হয় দলীয় ১ রানে। জন বেয়ারস্টোকে (০) সাজঘরের পথ দেখিয়ে দেন লাসিথ মালিঙ্গা। তারপর জেমস ভিন্সকেও (১৪) ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে দেননি অভিজ্ঞ এই পেসার।

তবে এরপরই জো রুট আর ইয়ন মরগান লড়েছেন। তাদের ব্যাটে ঠিক পথেই ছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু এই জুটিকে বেশিদূর যেতে দেননি ইসরু উদানা। অধিনায়ক মরগানকে (২১) ফেরান তিনি। এরপর রুট-বেন স্টোকস গড়েন ৫৪ রানের জুটি। ৫৭ রান করে মালিঙ্গার বলে রুট ফিরলেও মনে হয়নি লো-স্কোরিং ম্যাচটা জিততে যাচ্ছে লঙ্কানরা।

কিন্তু উত্তাপ ছড়ানো লড়াইয়ে এরপরই পথ হারায় ইংল্যান্ড। অন্যপ্রান্তে দাঁড়িয়ে শুধু সতীর্থদের আসা-যাওয়া দেখেছেন স্টোকস। সঙ্গী পেলে হয়তো দলকে শ্বাসরুদ্ধকর এক জয় এনে দিতে পারতেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ৮৯ বলে ৮২ রানে অপরাজিত থাকেন স্টোকস। অন্যপ্রান্তের শেষ ব্যাটসম্যান মার্ক উডকে ফিরিয়ে আনন্দে মাতে লঙ্কানরা।

মালিঙ্গা ১০ ওভারে ৪৩ রানে নিয়েছেন ৪ উইকেট। ম্যাচসেরা তিনিই। তিনটি উইকেট নেন ডি সিলভা। দুটি পেয়েছেন উদানা।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি শ্রীলঙ্কা। অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ হাল না ধরলে এই ম্যাচেও ভয়াবহ ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে পড়তে পারতো তারা। শেষ পর্যন্ত তার ব্যাটিংয়েই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সম্মানজনক স্কোর দাঁড় করায় লঙ্কানরা।

শুক্রবার লিডসের হেডিংলিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমেই হোঁচট খায় সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। মাত্র ৩ রানের মধ্যে সাজঘরে ফেরেন দুই ওপেনার দিমুথ করুনারত্নে ও কুসল পেরেরা। আভিশকা ফার্নান্দো সেই বিপর্যয়ে হাল ধরেন। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে নেমেই কথা বলে তার ব্যাট।তবে ৪৯ রানে এসে থেমে যান তিনি। মার্ক উডের বাউন্সার ঠিকঠাক সামাল দেওয়া হয়নি।

এরপর কুসল মেন্ডিস ও ম্যাথুজের ব্যাট লড়েছে শ্রীলঙ্কা। তাদের সেই দাপটে বাধা হয়ে দাঁড়ান লেগ স্পিনার আদিল রশিদ। কুসল মেন্ডিসকে ফিরিয়ে ভাঙেন ৭১ রানের জুটি। চটজলদি বিদায় নেন জিবন মেন্ডিস।
ষষ্ঠ উইকেটে চেষ্টা করেছিলেন ম্যাথুজ ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। কিন্তু দ্রুত রান তোলা হয়নি। ২৯ রানে ফেলেন সিলভা।

আর শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন ম্যাথুজ। ১১৫ বলে করেন ৮৫ রান। তিনটি করে উইকেট নেন মার্ক উড ও জোফরা আর্চার। দুটি উইকেট নেন লেগ স্পিনার আদিল রশিদ।

কিন্তু শেষ হাসি শ্রীলঙ্কারই। অল্প পুঁজি নিয়েও মালিঙ্গা আর ডি সিলভার বোলিংয়ে দুর্দান্ত এক জয় তুলে নিয়েছেন দ্বীপ দেশটি।

সব মিলিয়ে ৬ ম্যাচ খেলে চার জয় (দক্ষিণ আফ্রিকা, বাংলাদেশ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে) ও দুই হারে (পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা) আট পয়েন্ট ইংল্যান্ডের।

৬ ম্যাচে দুই জয় (আফগানিস্তান ও ইংল্যান্ড) ও দুই হারে (নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে) ৬ পয়েন্ট শ্রীলঙ্কার। বৃষ্টির জন্য পাকিস্তান ও বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটি ম্যাচ মাঠে গড়ায়নি তাদের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

শ্রীলঙ্কা: ৫০ ওভারে ২৩২/৯ (করুনারত্নে ১, কুসল পেরেরা ২, ফার্নান্দো ৪৯, কুসল মেন্ডিস ৪৬, ম্যাথুজ ৮৫*, জিবন মেন্ডিস ০, ডি সিলভা ২৯, থিসারা ২, উদানা ৬, মালিঙ্গা ১, প্রদিপ ১*; ওকস ১/২২, আর্চার ৩/৫২, উড ৩/৪০, রশিদ ২/৪৫)
ইংল্যান্ড: ৪৭ ওভারে ২১২/১০ (ভিন্স ১৪, বেয়ারস্টো ০, রুট ৫৭, মরগান ২১, স্টোকস ৮২*, বাটলার ১০, মঈন ১৬, ওকস ২, রশিদ ১, আর্চার ৩, উড ০; মালিঙ্গা ৪/৪৩, প্রদিপ ১/৩৮, ডি সিলভা ৩/৩২, উদানা ২/৪১)
ফল: শ্রীলঙ্কা ২০ রানে জয়ী
ম্যাচসেরা: লাসিথ মালিঙ্গা